জেনে নাও

ভুল তথ্য/গুজব কিভাবে আটকাবেন?

ভুল তথ্য/গুজব কিভাবে আটকাবেন?
ভুল তথ্য/গুজব কিভাবে আটকাবেন?
68views

ট্রেন্ডিং এ থাকা যে কোনো কিছু নিয়ে ভুল তথ্য বা গুজব ইন্টারনেটে ভাইরাল হওয়া নতুন কিছু নয়। এর জন্য দায়ী আমি, আপনি এবং আমরা। তাহলে কিভাবে আমরা ভুল তথ্য/গুজব ছড়ানো বন্ধ করতে পারবো? বিশেষজ্ঞরা সহজ উত্তর দিয়েছেন, আমাদের সবাইকে প্রাপ্ত  তথ্য এর “স্বাস্থ্য” বা উৎস (source) যাচাই করতে বলেছেন।    

বর্তমান করোনা ভাইরাস/কভিড-১৯ এর প্রেক্ষাপট বিচার-বিশ্লেষণ করে কিভাবে আমরা ভুল তথ্য/গুজব ছড়ানো বন্ধ করতে পারবো সে বিষয়ে আলোচনা করা হলো।

স্কিল ডেভেলপমেন্ট ও নানা রকম মজার টপিক নিয়ে আমরা নিয়মিত ভিডিও প্রকাশ করে থাকি Shadhin School চ্যানেল এ।

১.  থামুন এবং ভাবুন

আপনি চান আপনার পরিবার ও বন্ধু-বান্ধব ভালো থাকুক, সতর্ক থাকুক। তাই আপনি যখনই কোনো তথ্য পেয়ে থাকেন ফেসবুকে, সাথে সাথে খুব দ্রুত সেটি তাদেরকে ফরওয়ার্ড বা শেয়ার করে থাকেন। আর এভাবেই ভাইরাল হয়ে পড়ে গুজব বা ভুল তথ্য। বিশেষজ্ঞদের মতে, ভুল তথ্য বা গুজব ছড়ানো বন্ধ হবে যদি আপনি কোনো তথ্য পাওয়া মাত্র সেটি শেয়ার বা ফরওয়ার্ড করার আগে একটু থামুন এবং ভাবুন আপনি কি শেয়ার করতে যাচ্ছেন। যদি তথ্যটি নিয়ে কোনো সংশয় জন্মায় আপনার মনে, তাহলে একটু সময় নিন, একটু চেক করে নিন তথ্যটি কতটুকু গ্রহণযোগ্য। এটি কিন্তু খুব কঠিন কিছু না। গুগল কিন্তু আপনার হাতেই। BBC, CNN এর মত বড় বড় নিউজ পোর্টাল কিন্তু আপনার হাতের নাগালেই। আপনার ৫ মিনিটের ভাবনা কিন্তু হতে পারে ভুল তথ্য কিংবা গুজব না ছড়ানোর সব চেয়ে বড় কারণ।

আরো পড়তে পারো ই-মেইল ব্যবহার এর ৬টি শিস্টচার

২. সোর্স চেক করুন

কোনো কিছু শেয়ার করার আগে নিজেকে প্রশ্ন করুন, এই তথ্যটি কোথা থেকে এসেছে। যদি উত্তরটি হয় “বন্ধুর বন্ধু” কিংবা “অমুক আঙ্কেলের তমুক কলিগ” তাহলে সেটি শেয়ার দেওয়া থেকে বিরত থাকুন। চেষ্টা করুন  বিশেষজ্ঞের দেওয়া কোনো তথ্য শেয়ার করতে। কারন মনে রাখবেন, বন্ধুর-বন্ধু বা অমুক-তমুক এর দেওয়া তথ্যের চেয়ে বিশেষজ্ঞের দেওয়া তথ্য হাজারগুণ নির্ভরযোগ্য।

আরো পড়তে পারো সঠিক সময়ে সকল কাজ শেষ করার সহজ উপায়

৩.  এটি কি ফেইক?

ভাইরাল হওয়া নিউজ গুলো পর্যবেক্ষণ করে দেখা গেছে, অধিকাংশ ভাইরাল নিউজ ছড়ায় স্ক্রীনশটকে পুঁজি করে। স্ক্রীনশটটি হতে পারে কোনো সরকারি মন্ত্রনালয়ের অফিসিয়াল পেইজ কিংবা ওয়েবসাইট এর কোনো তথ্য, হতে পারে বিবিসি, সিএনএন এর মত কোনো পোর্টাল এর  অফিসিয়াল পেইজ কিংবা ওয়েবসাইট এর কোনো তথ্য। তাই স্ক্রীনশট দেওয়া কোনো তথ্য শেয়ার দেওয়ার আগে একবার চেক করে নিন সেটির সত্যতা কতটুকু। বলছি না স্ক্রীনশট দেওয়া সব কিছু ফেইক। যেহেতু স্ক্রীনশট সহজেই বানানো যায় এবং এই পন্থায় সব চেয়ে বেশি গুজব ছড়ায়, তাই শেয়ার দেওয়ার আগে একটু চেক করে নিবেন। পারবেন না সত্যতা যাচাই করতে ৪-৫ মিনিট সময় ব্যয় করতে? পারবেন না আপনার হাত দিয়ে গুজব না ছড়াতে?

আরো পড়তে পারো দ্রুত টাইপিং শিখার ৫টি গেম এবং অ্যাপ্লিকেশন

৪. বুঝতে পারছেন না সত্যি কিনা? শেয়ার করবেন না

অনেক সময় আমরা এমন কিছু পেয়ে থাকি যার সোর্স খুঁজে পাওয়া যায়না এবং যেটা আমরা বুঝতে পারি না সত্যি কিনা। কিন্তু আমরা সত্যি হলেও হতে পারে ভেবে জনস্বার্থে শেয়ার দিয়ে দেই। বিশ্বাস করুন, আপনি ভালো করার চেয়ে খারাপটাই বেশি করছেন! আপনি একজন শিক্ষিত মানুষ হয়ে যেটা বুঝতে পারছেন না সত্যি কিনা সেটি অল্প শিক্ষিত মানুষ কিভাবে বুঝতে পারবে? যদি ভুল কোনো তথ্য শেয়ার দিয়ে থাকেন তাহলে সেটি অন্য কারো ক্ষতির কারণও হতে পারে। আমরা নিজেরা নিশ্চিত নই এইসব কিছু শেয়ার দেওয়া থেকে নিজেদের বিরত রাখি। গুজব প্রতিরোধ করি।

আরো পড়তে পারো ৫টি ইউটিউব চ্যানেল যা আমাদের স্মার্ট করে তুলবে

খুব সহজ ৪টি পয়েন্ট নিয়ে এখানে আলোচনা করা হয়েছে। এগুলো রকেট সায়েন্স নয়, খুবই সহজ কিছু বেসিক নিয়ম। শুধুমাত্র আমরা হুটহাট কিছু শেয়ার করার আগে একটু ভাবলেই কিন্তু গুজব কিংবা ভুল তথ্য ছড়ানো প্রতিরোধ করা সম্ভব। আসুন আমরা যার যার অবস্থান থেকে একটু সতর্ক হয়, আমরা যদি ভুল তথ্য শেয়ার না দেই, তাহলে গুজব ছড়াবে কিভাবে?

আরো পড়তে পারো
ক্যারিয়ার শুরুতে ব্যর্থ ছিলেন সফল যে ৪ উদ্যোক্তা
সফলতার ৭টি সুত্র
ভার্সিটি জীবন শুরুর আগে করে ফেলো এই ৫টি কাজ
ফেইল মানেই কি সব শেষ?

Leave a Response

Abdullah Abu Sayeed
I am an Architecture student who loves to narrate story through lens. Loves to writes and wants to be a successful Entrepreneur.